শনিবার, ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২রা জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি.
SKF Company

ভাস্কর্য ইস্যুতে ধর্ম ব্যবসায়ীদের মাঠ গরম.

০৭-ডিসে-২০২০ | Dhaka Desk | 120 views

Sadequl Bodruzzaman ( Panna), New York, December 07, 2020

ভাস্কর্য ইস্যুতে ধর্ম ব্যবসায়ীদের মাঠ গরম: কি সস্তা আবেগী যুক্তি জালেম আলেম ফয়জুল করিম ও মামুনুল হক রা দিয়ে বেড়াচ্ছে | তারা বলছে বঙ্গবন্ধু তাদের হৃদয়ে আছে ও থাকবে কিন্তু ভাস্কর্যে তাদের কোনো শ্রদ্ধা ভালোবাসা থাকবে না | বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য যারা বানাবে তাদের কারণে নাকি বঙ্গবন্ধু কবরে আজাব ভোগ করবে | সত্যিতো এক্কেবারে জায়গা মতো তীরটা ছোড়া হয়েছে , কম কথা !! ধর্মীয় ব্যাপার স্যাপার !! দেখুন কিভাবে শেখ হাসিনার দেয়া ডিজিটাল বাংলাদেশের সুযোগ তারা ব্যবহার করছে | কয়েকজন দাঁড়ি বেসে জুব্বা টুপী লাগিয়ে তো বিশেষ ভঙ্গিতে বলেই বেড়াচ্ছে শেখ হাসিনা ও সেনা প্রধানের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে |ভাবতে অবাক লাগে,এরা নাকি শেখ হাসিনার বসে আসবে | কি অর্বাচীন চিন্তা ভাবনা !! কিছু সংখ্যাক জালেম আলেম ভাস্কর্য বিষয়ে ফতোয়া দেয়া হবে কি না সে বিষয়ে আলোচনার জন্য সভায় মিলিত হলো কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফেরাত চেয়ে দোআ হলো না !! বঙ্গবন্ধু ওদের হৃদয়ে আছে !! ওদের কোনো দল বা গোষ্ঠী বা ব্যাক্তি ফয়জুল করিম , মামুনুল হক রা কোনোদিন বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত করতে যায়নি !! বঙ্গবন্ধু ওদের হৃদয়ে আছে !! মানুষকে বিভ্রান্ত করে তাদের পক্ষে নেয়ার এই মায়া কান্না কি আমরা আপনারা বুঝতে পারি ? বঙ্গবব্ধু হত্যার পর এদেশে হিন্দুদের উপরে যে অত্যাচার বলাৎকার চালানো হলো তখন কি “বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সাপ্রদায়িক সম্প্রীতির” পক্ষে তারা মুখ খুলেছিলো ?? ওরা বঙ্গবন্ধুকে হৃদয় দিয়ে ভালো বাসে !! বুঝতে পারেন কি জালিম এরা !! আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি বাংলাদেশে হিন্দুদেরকে যদি সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী হিসাবে কেও বিবেচনা করেও থাকে তারাই একমাত্র গোষ্ঠী যারা স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির সাথে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল | যা ছিল তাদের পরাক্রান্ত অবস্থায় অকুল জয়ের সিদ্ধান্ত | জাতির পিতা হত্যার পর জাতির পিতাকে ভালোবেসে এই দেশের প্রথম সংখ্যা লঘু গোষ্ঠী দেশের প্রতি যে মমত্ব বোধ দেখিয়েছে তা কেও অনুধাবন না করলে বুঝানো যাবে না | এই সংখ্যা লঘু গোষ্ঠী দাঁতের উপর দাঁত চেপে, তাদের আশা আকাঙ্খা জলাঞ্জলি দিয়ে,তাদের বিবেক প্রসূত বিবেচনা দিয়ে বুঝতে পেরেছিলো যে তারা বিএনপি জামাত কে ভোট দিলেও বিএনপি জামাত কখনোই বিশ্বাস করবেনা যে হিন্দুরা বিএনপি জামাত কে ভোট দেয় বা দিতে পারে বা দিবে | তাছাড়া তারাতো স্বাধীনতার অংশীদার | তাদের বিচার বিবেচনা সিদ্ধান্ত ভুল হলে চলবে কেন ? অতএব তাদের সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল, নাইন্টিনাইন পার্সেন্ট সংখ্যালঘু হিন্দুরা বঙ্গবন্ধুকেই ভালোবেসেছে | কই স্বাধীনতায় যারা বিরোধীতা করলো এইদেশে তারা থাকার সুযোগ পেয়েও তারা তো বঙ্গবন্ধুকে ভালো বাসলো না ? এমন নজির কি কোথাও আছে যে তারা নিজস্স অর্থায়ন ও ব্যবস্থাপনায় বঙ্গন্ধুর উপর একটি মিলাদ , একটি ওয়াজ মাহফিল করেছে ?? এমন নজির কি আছে তারা বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে ধারণা দেয়ার জন্য মাদ্রাসার ছাত্রদের নিয়ে বা ওলামা একরামকে নিয়ে কোনো ক্লাস বা সেমিনার করেছে ?? ওরা বঙ্গবন্ধু কে হৃদয়ে ধারণ করে. !! ওরা নিজেরা নিজেদেরকে ওলামায়ে একরাম ফতোয়া দাতা বানায়া ফেলে,আর বঙ্গবন্ধুকে জাতির পিতা বললেই ওদের চিপায় ব্যাথা লাগে | অসম্প্রদায়িক রাজনীতিকে ধ্বংস করার জন্য জাতির পিতার হত্যার পর জিয়ার হা না ভোট থেকে শুরু করে স্বৈরাচার ও খালেদার সকল আমলেই হিন্দু সংখ্যালঘুদের অত্যাচার সইতে হয়েছে, কারো কারো ভিটা মাটি ছাড়তে হয়েছে | এতো অত্যাচার সয়েও তারা তাদের ভগবানের কাছে প্রার্থনা করেছে আবার যেন বঙ্গবন্ধুর দল আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসে | আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসেছে তারা আগের চেয়ে অনেক ভালো আছে | পরিপূর্ণ ও সর্বোত্তম ইসলাম ধর্মের নামে তথা কথিত ধর্ম ব্যবসায়ী জালেম আলেমগণ কর্তৃক বাংলাদেশের অসম্প্রদায়িক চেতনা ধ্বংসের নীল নকশার উপর বলতে গিয়ে বাংলাদেশের হিন্দুদের সম্পর্কে অবতারণা করা হয়েছে | অন্য সংখ্যা লঘুদের বিষয়েও একই ভাবে প্রকাশ করা যায়, লঘু ভেদে হয়তোবা তার ব্যতিক্রম হতে পারে | অনেকেই ভাবতে পারেন প্রকারান্তে আমি হিন্দুদের একটু বেশিই প্রশংসা করে ফেললাম | আসলে বিষয়টি এইভাবে চিন্তা করে দেখুন | আমি একটি উন্নত দেশে প্রবাসী | বাংলাদেশ আমার জন্মগত অধিকার,কিন্তু আমার শিক্ষিত কিছু বন্ধু আমাকে টিপ্পনি করে এই বলে যে আমি গাছের টাও খাবো,তলার টাও খাবো সেই কারণে আমি কাঠ মোল্লাদের বিরুদ্ধে বলি ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি | তাদের ধারণা আমি বাংলাদেশেও সমানে অর্থনৈতিক ফায়দা লুটছি, আর উন্নত দেশের ভালো খাবার তো খাচ্ছিই | আমি তাদের স্ব গোত্রীয় হওয়ার পরেও আমার প্রতি তাদের উদিত ভাবধারার আক্রোশ সহ্য করতে হয় | এখন আসুন যে দেশে থাকি সেখানে কালো সাদার সম অধিকার বিদ্যমান, তারপরও কালোরা মনে করে সাদারা তাদেরকে পছন্দ করে না, কালোদের আঁর চোখ সবসময় তির্যক ভাবে কাজ করে, ওরা এটা বিশ্বাসই করতে চায়না যে ওদেরকে কেউ পছন্দ করতে পারে | এক জন আমাকে বলেছে আমি জানি আমি কালো, তুমি বা তোমরা আমাকে সেই ভাবেই ভাব বা ট্রিট করো | এটা ধরে নিয়েই আমাকে সাহসে ভর করে চলতে হয় | রোসা পার্ক, মার্টিন লুথার কিং জুনিয়র আমাকে সেই সাহস জুগিয়েছে | তাদের এই সাহস সঞ্চয় করতে স্বাধীনতার পরেও পৌনে দুশো বছর লেগেছিলো | সেই তুলনায় বাংলাদেশের সংখ্যা লঘুদের সাহস অনেকটাই বেশি ছিল | বিএনপি,জামাতি ,বামাতী, স্বৈরাচার ও অত্যাচারী জালেম আলেমদের বিপরীতে তারা বাংলাদেশে সম্প্রীতির সহ অবস্থানের দুঃসাহস দেখিয়েছে| এই সংখ্যা লঘুরা এখন আওয়ামীলীগের আমলে এতো সুযোগ সুবিধা পাবে কেন ? তাদের পরামর্শেই বুঝি সরকার ভাস্কর্য ও মূর্তি বানানোর কাজে হাত দিয়েছে!! সুতরাং এদেশের মাটি অপবিত্র হতে দেয়া যাবে না | এদেশের মাটিতে লঘুদের ভাস্কর্য ও মূর্তিও থাকতে পারবে না , আসলে প্রকারান্তে মন্দিরও থাকতে পারবে না,মন্দিরের ভিতরে বাইরে দেয়ালে কোনো দেব দেবী খোদাই করা যাবে না | এগুলোই কি জালেম আলেমদের উদ্দেশ্য ?? ওরা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি চায় !! সাম্প্রতিক ভাস্কর্য ইস্যুটি যে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরী করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার সেটি বুঝতে কারো অসুবিধা হলে আমরা স্বাধীনতার শক্তি প্রয়োগ করে তা বুঝিয়ে দিবো | ওরা জানে না যে ওরা কোথায় হাত দিয়েছে | ওরা এখনো জানে না ওরা যে দেশটাতে থাকে সেই দেশটাই বঙ্গবন্ধু | এতো দুঃসাহস তোদের কে জোগালো তোরা বঙ্গবন্ধুর শরীরে আঘাত করার মতো দুঃসাহস দেখাস ? তোরা বলেছিস তোদের ক্যান্টনমেন্ট লাগবেনা, তোদের লাঠি সোটাই যথেষ্ট | তোদেরকে মনে করিয়ে দেই বঙ্গবন্ধু বলেছিলো যার যা কিছু আছে তাই দিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করো, আমরা তাই করেছিলাম | লগি বৈঠা তো আছেই, প্রয়োজনে লগি বৈঠাই যথেষ্ট তোদের জন্য | বাহাত্তর সালের সংবিধান যখন তৈরী হয়েছিল তখন তোমরা কোথায় ছিলে ? সাহস থাকলে বাধা দিতে | দেখতাম কেমন পারো ? শেখ হাসিনার সরকারকে ভুরুঙ্গামারী ভেবো না, ভেবো না যে শেখ হাসিনা তার বাবা মা বংশধর দের জন্য কাঁদে , নামাজ রোজা তাসবী কোরান তেলওয়াত তাহাজ্জত সবই করে তোমাদেরকে বার বার মাপ করে দেয়ার জন্যে | প্রয়োজনে আর একটি স্বাধীনতা যুদ্ধ হবে | বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য এদেশে হবেই হবে |

 জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু

 Sadequl Bodruzzaman, New York. December 07, 2020

Spread the love

সার্চ/অনুসন্ধান করুন

USA JOBS LINKS