রবিবার, ৯ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলহজ, ১৪৪১ হিজরি.
SKF Company

নিউইয়র্কে বিলাসবহুল নিজ ফ্লাটে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার উদীয়মান কোটিপতি ফাহিম সালেহ

১৫-জুলা-২০২০ | usbd24saif | 76 views
Fahim Saleh

নিউইয়র্ক প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশি মেধাবী তরুন ফাহিম সালেহ (৩৩)ম্যানহাটনের নিজের বিলাসবহুল এপার্টমেন্টে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার । অসম্ভব মেধাবী এই তরুন পেশায় একজন ওয়েবসাইট এবং এপস ডেভেলপার। বাংলাদেশের জনপ্রিয় পাঠাও রাইড শেয়ারিং এপ্সের সহপ্রতিষ্ঠাতা । এছাড়াও তিনি আরও কয়েকটি দেশে রাইড শেয়ারিং এপস কোম্পানির মালিক ছিলেন ।  

নিউইয়র্কের পুলিশ কর্মকর্তা জানান, ফাহিমের বোন ফাহিমকে ফোনে না পেয়ে ৯১১ তে কল করে, পরে পুলিশ সদস্যরা তার ফ্লাটে গিয়ে ফাহিমের খণ্ড বিখণ্ড লাশ উদ্ধার করে।পুলিশের ধারনা ১৪ই জুলাই দুপুর বা রাতে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে । কী নির্মমভাবে প্রাণ হারাতে হল নিউইয়র্কের বাঙালি ৩৩ বছর বয়সি তরুন ফাহিমকে! ডাউনটাউন ম্যানহাটনে নিজের বিলাসবহুল এপার্টামেন্টে খুন হল সে। সিসি টিভি ফুটেজে দেখা যায় মাস্ক ও গ্লাভস পরা এক আততায়ী তাকে অনুসরন করে, তারই সাথে একই এলিভেটরে উঠে এসেছিল সাততালা পর্যন্ত।অনুমান করা হচ্ছে সুরক্ষিত এপার্টমেন্ট বিল্ডিং এ সংঘটিত এই হত্যাটি সুপরিকল্পিত ও ঝানু হত্যাকারীর দারা সংঘটিত হয়েছে।হত্যার আলামত নষ্ট করার পরিকল্পনাও ছিল সুচারু।

অবশ্যই মানতে হবে সে অসম্ভব মেধাবী। স্মার্ট। এই বয়সেই সে ছিল একজন মিলিয়নীয়ার। নিজের কর্মদক্ষতা ও বুদ্ধি খাটিয়েই সে নিজের এই সমৃদ্ধ জীবন নির্মান করেছিল। ম্যানহাটনের ডাউনটাঊনের অভিজাত পাড়ায় আড়াই মিলিয়ন ডলারের(প্রায় ২০ কোটি টাকায়)এপার্টমেন্ট কিনে সে তার উন্নত জীবন শুরু করেছিল। কিন্তু সেই জীবন সূচনাতেই স্তব্ধ হয়ে গেল।

কিন্তু মনে হচ্ছে, হয়ত তার পেছনে শত্রু ছিল। নিশ্চয়ই গোয়েন্দা তদন্তে ধীরে ধীরে সবকিছুই বেরিয়ে আসবে। আমরা জানতে পারব হত্যার মোটিভ কী ছিল। কে বা কারা তাকে হত্যা করল? কেন করল?

তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ ও আমেরিকার বাঙ্গালী কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে ।

Spread the love

সার্চ/অনুসন্ধান করুন